সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ সিরাজগঞ্জের সব খবর, সবার আগেঃ SirajganjKantho.com

www.SirajganjKantho.com

বেলকুচির বিসমিল্লাহ আধুনিক হাসপাতালে ডাক্তার নেই, প্রসূতীকে ৪ঘন্টা আটকে রাখায় গর্ভের সন্তানের মৃত্যু (ভিডিও সহ)
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বেলকুচি ১০-০৯-২০১৯ ০৬:১৬ অপরাহ্ন প্রকাশিতঃ প্রিন্ট সময়কাল Oct 14, 2019 08:10 PM
জহুরুল ইসলাম: সিরাজগঞ্জের বেলকুচির বিসমিল্লাহ আধুনিক হাসপাতালে প্রসুতিকে চার ঘন্টা আটকে রাখায় গর্ভের সন্তানের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ইতি মধ্যে এই হাসপাতালে বেশ কয়েকবার নবজাতকের মৃত্যু সহ অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটেছে। কর্তৃপক্ষের নিরব ভুমিকা প্রশ্নসিদ্ধ। সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাতে বেলকুচি পৌর এলাকার শেরনগরে অবস্থিত বিসমিল্লাহ্‌ আধুনিক হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। অবস্থার বেগতিক হলে পাশের ইউনাইটেড জেনারেল হাসপাতালে সিজার করে মৃত সন্তান প্রসব করে। এ ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে বিসমিল্লাহ আধুনিক হাসপাতালের পরিচালক আব্দুর রহমান ওরফে রকমান ডাক্তার সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন অফিসে জোর তকবির চালাচ্ছে। প্রসূতির লিপি খাতুন (২২) শাজাদপুর উপজেলার শিপপুর গ্রামের আব্দুল মমিনের স্ত্রী। প্রসূতির স্বামী আব্দুল মোমিন রাত ১০ টার সময় বলেন, ৯ (সেপ্টেম্বর) সোমরার বিকালে আমার স্ত্রীর প্রসব ব্যথা ওঠে। অবস্থা খারাপ দেখে তাকে বেলকুচি বিসমিল্লাহ্‌ আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যাই। প্রথমে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে হাসপাতালের নার্সরা রোগী দেখে জানান নরমাল ডেলিভারিতে সন্তান প্রসব হবে। ভর্তি হওয়ার পর ডাক্তার আসবে বলে আমাদের রোগীকে চার ঘন্টা অপেক্ষা করাণ। কিন্তু চার ঘন্টা অতিবাহিত হওয়ার পরও ডাক্তার না আশায় রোগীর অবস্থা অবনতি দিকে যায়। পরে নার্সরা আমাকে জানান খুব দ্রুত সিজার করা লাগবে আমাদের এখানে ডাক্তার নেই। অন্য স্থানে নিয়ে যান। আমরা অবস্থা অবনতি দেখে পাশেই একটি বেসরকারি ক্লিনিক ইউনাইটেড জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করাই পরে সিজারের মধ্যেমে মৃত্যু সন্তান ভূমিষ্ট হন। তিনি আরও জানান, এই বিসমিল্লাহ ক্লিনিক চার ঘন্টা মিথ্যা আশাস দিয়ে আমাদের নবজাতক শিশুটিকে মেয়ে ফেলেছে। এই ক্লিনিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের দৃষ্টিআর্কষন করছি। এ বিষয়ে বিসমিল্লাহ্‌ আধুনিক হাসপাতালে তেমন কাওকে পাওয়া যায়নি। স্থানিয়রা বলে সবাই পালিয়ে গেছে। হাসপাতালের ম্যানেজার সেতারা খাতুনের সাথে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। পরিচালক আব্দুল রহমান ওরফে রহমান ডাক্তার জানান, আমি সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন অফিসে আছি। কিন্তু ঘটনাটি শুনেছি, তবে এই বিষয়ে আপনার কিছু কইরেন না, আপনাদের সাথে সাক্ষাৎ করা হবে। বেলকুচি থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ারুল ইসলাম জানান, এই ঘটনাটি আমরা লোক মারফত শুনেছি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বেলকুচি স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনার ডাঃ মাহাবুব হোসেন বলেন, ক্লিনিক গুলো নিয়ন্ত্রন করেন জেলা সিভিল সার্জন অফিস। আমাদের কোনো হাত নেই। এই বিষয়ে সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, এই ঘটনায় বিসমিল্লাহ্‌ আধুনিক হাসপাতালের বিরুদ্ধে তদন্তের সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

১০-০৯-২০১৯ ০৬:১৬ অপরাহ্ন প্রকাশিত
http://sirajganjkantho.com/cnews/newsdetails/20190910181639.html
© সিরাজগঞ্জ কন্ঠ, ২০১৬     ||     A Flashraj IT Initiative