সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ সিরাজগঞ্জের সব খবর, সবার আগেঃ SirajganjKantho.com

www.SirajganjKantho.com

সনদ ছাড়াই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, করছেন আলট্রাসনোগ্রামসহ নানা প্যাথলজিকাল পরীক্ষা
স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট, তাড়াশ ০৯-০৯-২০১৯ ০৩:৫৩ অপরাহ্ন প্রকাশিতঃ প্রিন্ট সময়কাল Feb 21, 2020 06:32 AM
আশরাফুল ইসলাম রনি: সিরাজগঞ্জ তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ বাজারের নুরজাহান ডায়াগনষ্টিক সেন্টার খুলে এক হোমিও চিকিৎসক দিচ্ছেন সকল প্রকার চিকিৎসা। কোনো প্রকার সনদ ছাড়াই বনে গেছেন বিশেষজ্ঞ হোমিও ডাক্তার। এতে প্রতারিত হচ্ছে গ্রামে সহজ-সরল মানুষ।


জানা যায় গত ১০/১২ বছর ধরে ডা. মো. আব্দুল হামিদ (ডি.এইস.এম.এস,ঢাকা) নিয়মিত রোগী দেখছেন, করছেন হাকিমী ও নিয়মিত আলট্রাসনোগ্রাম। করে থাকেন সকল ধরনের জটিল, কঠিন ও গোপন রোগের চিকিৎসা। কোনো প্রকার ডাক্তারি সনদ ও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও শিক্ষাগত সনদ কতটুকু তা বলেন না তিনি। শুধু তাই নয় তিনি সকল প্রকার রক্ত, ইউরিনসহ পরীক্ষা নিজেই করেন।

শুধু বলে থাকেন ডিপ্লোমা করেছেন আলট্রাসনোগ্রাম এর বিষয়ে। আর কোন সনদ না থাকলেও নামের পূর্বে লিখছেন ডাক্তার শব্দটি। রোগীদের নানান রকমের পরামর্শের পাশাপাশি নিজের দোকান থেকেই দিচ্ছেন ওষুধ।

প্রতিবেদকের চোখের সামনেই তিনি রোগী দেখে চিকিৎসা ও ওষুধ দিচ্ছিলেন আগত রোগীদের। আর তার এ কাজে সহায়তা করছিলেন তার এক ভাগ্নে।

যেকোনো চিকিৎসা সংক্রান্ত কোনো ধরনের সনদ আছে কিনা জানতে চাইলে ডা. মো. আব্দুল হামিদ জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে হোমিও ঔষধ বিক্রী করছেন। এরমধ্য বছর পাচেক আগে শুরু করেছেন আলট্রাসনোগ্রাম, রক্ত পরীক্ষা, ইউরিন পরীক্ষাসহ সকল প্রকারের পরীক্ষা।
কতদূর বা কোন শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন জানতে চাইলেও এর কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি ডা. মো. আব্দুল হামিদ। কোনোরকম চিকিৎসা বিদ্যা ছাড়াই এভাবে চিকিৎসা দিচ্ছেন এর কারনে যেকোনো সময় কোনো রোগীর দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে বা অপ-চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে বললে তিনি বলেন, আমি কখনই কোনো ভুল করতেই পারিনা।
অতীতেও করিনি আর ভবিষ্যতেও করবোনা। তাহলে আপনি হোমিও চিকিৎসক হয়ে আলট্রাসনোগ্রামসহ সকল পরীক্ষা ও এ্যালোপ্যাথি ঔষধ লিখছেন কিভাবে এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে নি তিনি।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ওই নুরজাহান ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে দুয়েকদিনের মধ্যে অভিযান চালিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।



০৯-০৯-২০১৯ ০৩:৫৩ অপরাহ্ন প্রকাশিত
http://sirajganjkantho.com/cnews/newsdetails/20190909155352.html
© সিরাজগঞ্জ কন্ঠ, ২০১৬     ||     A Flashraj IT Initiative