কামারখন্দের জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টারের ভুল সিগন্যালে বিরতির স্টেশনেও দাঁড়ায়নি ট্রেন
০২ এপ্রিল, ২০২০ ০৩:৪০ অপরাহ্ন


  

  • কামারখন্দ/ অন্যান্য:

    কামারখন্দের জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টারের ভুল সিগন্যালে বিরতির স্টেশনেও দাঁড়ায়নি ট্রেন
    ১০ মার্চ, ২০২০ ০৭:০৮ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    মোঃ খাইরুল ইসলামঃ সিরাজগঞ্জের কামারখন্দের জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনে মাস্টারের ভুল সিগন্যালে বিরতির স্টেশনেও দাঁড়ায়নি ট্রেন। এতে বেশ কিছু যাত্রীর যাত্রা বাতিল ও জামতৈল স্টেশনে নামার যাত্রীদেরও পরের স্টেশনে নামতে হয়েছে। ফলে গভীর রাতে চরম ভোগান্তির স্বীকার হন এসব যাত্রী। মঙ্গলবার ভোর রাত ৪টা ৪৮ মিনিটে জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনে কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার আলী আহাম্মদকে বরখাস্ত করেছে পশ্চিমা রেলওয়ে বিভাগ। একই সাথে ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন সুত্রে জানা যায়, খুলনা থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেন নির্ধারিত যাত্রা বিরতির জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের লুপ লাইনে দাঁড়ানো কথা থাকলেও স্টেশন মাস্টার ভুল করে সিগন্যালটি থ্রো করে দেন।
     
     
    এতে  ট্রেনটি জামতৈল স্টেশনের লুপ লাইনে না দাঁড়িয়ে মেইন লাইন দিয়ে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে শহীদ এম মনসুর আলী রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে দাঁড়ায়। ফলে ঢাকাগামী যাত্রী ও জামতৈল স্টেশনে নামার যাত্রীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। ট্রেনটির চালক রুহুল আমিন কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার আলী আহাম্মদকে ফোন করলে তিনি ট্রেন না দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন। বছর কয়েক আগে স্টেশন মাস্টার সত্তরোর্ধ আলী আহাম্মদ অবসর নিলেও রেলওয়ের কিছু কর্মকর্তা তাদের আবারো স্বপদে বহাল রেখেছেন। তাদের মধ্যে স্বাভাবিক জ্ঞান ও শারীরিক সুস্থাতাই বা কতটুকু রয়েছে সেটা পরীক্ষা নিরীক্ষা না করে রেলওয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাদের। এতে বড়ো দুর্ঘটনার আশংকা করছেন অনেকেই। অবসরপ্রাপ্ত কয়েকজন স্টেশন মাস্টার ধারণা করছেন যেহেতু সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেন জামতৈল স্টেশনে যাত্রা বিরতি রয়েছে। সেহেতু যদি শহীদ এম মনসুর আলী রেলওয়ে স্টেশন ও জামতৈল স্টেশনের মধ্যে যদি কোন ট্রেন চলমান থাকতো তাহলে বড়ো ধরনের দূর্ঘটনার সম্ভাবনা রয়েছিল। এ ঘটনায় জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার আলী আহাম্মদ জানান, আমি ভুল করে সিগন্যালটি থ্রো করে দিয়েছিলাম। এট আমার ভুল হয়েছে। এ ব্যাপারে পাকশির বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক আসাদুল হক জানান, ভুল সিগন্যাল দেয়ার কারণে স্টেশন মাস্টারকে বহিস্কার করা হয়েছে। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
    মোঃ খায়রুল ইসলাম ১০ মার্চ, ২০২০ ০৭:০৮ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 719 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    কামারখন্দ অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    বিশ্বকাপ ক্রিকেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    13236647
    ০২ এপ্রিল, ২০২০ ০৩:৪০ অপরাহ্ন