কোহলিকে দেওয়া ভিভ রিচার্ডসের সাক্ষাতকার
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৮:৪৬ পূর্বাহ্ন


  

  • আন্তর্জাতিক/ অন্যান্য:

    কোহলিকে দেওয়া ভিভ রিচার্ডসের সাক্ষাতকার
    ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ০৪:৩১ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    বিরাট কোহলির মুখোমুখি ক্রিকেট কিং ভিভ রিচার্ডস। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে অ্যান্টিগায় প্রথম টেস্ট শুরুর আগে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডসের সাক্ষাতকার নিয়েছেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। সাক্ষাতকার শুরুর আগে কোহলি বলেন, 'আমি আজ এমন একটি কাজ করতে যাচ্ছি, যা করতে আমাকে সচরাচর দেখা যায় না। এই কাজটা করতে পেরে আমি দারুণ খুশি। আসুন, আলাপ করিয়ে দিই ব্যাটসম্যানদের সবচেয়ে বড় প্রেরণা ভিভিয়ান রিচার্ডসের সঙ্গে।

     

    পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো দুই প্রজন্মের দুই মহাতারকার কথোপকথন:

     

    কোহলি: আমরা আপনার খেলার ভিডিওতে দেখেছি, হেলমেট ছাড়া, শুধুমাত্র একটা টুপি পরে ব্যাট করতে নামছেন। আমি জানি, তখনকার সময় পিচ সে রকম ভালো হতো না। ব্যাট করতে নামার সময় কী ভাবতেন? বিশেষ করে যখন জানতেন, সে রকম কোনো সুরক্ষা নেই। বোলাররা যত খুশি বাউন্সার দিতে পারবে। ওই অবস্থায় ড্রেসিংরুম থেকে ক্রিজে পৌঁছনোর সময় আপনার মাথায় কী চলত?

     

    রিচার্ডস: আমার বিশ্বাস ছিল, আমিই সেই লোক যে কাজটা করতে পারবে। মনে হতে পারে আমি অহংকারী। কিন্তু ঘটনা হলো, আমার সবসময় বিশ্বাস ছিল আমি এমন একটা খেলার সঙ্গে জড়িত, যেটা সম্পর্কে আমার খুব ভালো ধারণা আছে। আমার নিজের উপরে সব সময় আস্থা ছিল। বলের আঘাত লাগলেও তা সহ্য করার ক্ষমতা থাকা দরকার। মিথ্যে বলব না, হেলমেটও আমি কয়েকবার পরেছি। কিন্তু অস্বস্তির সঙ্গেই পরেছিলাম। তাই আবার আমার সেই টুপি, সেই মেরুন টুপিতেই ফিরে যাই। ওই টুপিটা নিয়ে আমার গর্বের শেষ নেই। আমার মানসিকতাই ছিল যে, আমি যোগ্য বলেই এই জায়গায় আছি। যদি চোট লেগে যায়, সেটা ঈশ্বরের ইচ্ছে। আমি ঠিক লড়াই করে ফিরে আসব।

     

    কোহলি: আমার মনে হয়, চোট লাগলে সেটা ইনিংসের শুরুর দিকে লেগে গেলেই ভালো হয়। তা হলে বুঝে যাব, চোট লাগলে কেমন অনুভূতি হয়। চোট লাগলে কী হবে, এই ভাবনাটা তখন আর থাকে না। চোট পেলে সেটা আমাকে আরও ভালো খেলতে উদ্বুদ্ধ করবে। আমি তখন দেখব, যাতে আর আঘাত না পাই।

     

    রিচার্ডস: ব্যাট করার সময় চোট লাগতেই পারে। চোট লাগার পরে কীভাবে তুমি ফিরে আসতে পারছ, সেটাই আসল ব্যাপার। এখন তো অনেক সুরক্ষার সরঞ্জাম বেরিয়ে গিয়েছে। আগে তো এ রকম ছোট গার্ড (চেস্ট গার্ড) কিছুই ছিল না। যখন পাঁজরে বল লাগত। যন্ত্রণাটা তখন টের পাওয়া যেত। তবে এ সবই খেলার অঙ্গ।

     

    কোহলি: আপনার ক্রিকেট জীবনে কী কী চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছিলেন? আর নিজের ওপর এতটা বিশ্বাস রাখতেন কেমন করে?

     

    রিচার্ডস: আমি সবসময় বিশ্বাস করতাম, চ্যালেঞ্জ নেওয়ার ক্ষমতা আমার আছে। আর নিজেকে তুলে ধরার চেষ্টা করতাম। আমি এই ব্যাপারটা তোমার মধ্যে দেখেছি। একই রকম আবেগ দেখেছি। আমি নিশ্চিত, মাঝে মাঝেই লোকে আমাদের দেখে বলে, 'ওরা এত রেগে থাকে কেন?

     

    এরপর দুজনেই হেসে ওঠেন। দুজনের মধ্যে এত মিল! অনেকেই হয়তো জানেন, বিরাট কোহলির আইডলের নাম কিন্তু ভিভ রিচার্ডস।

    নিউজরুম ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ০৪:৩১ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 118 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    আন্তর্জাতিক অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    বিশ্বকাপ ক্রিকেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    11392998
    ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৮:৪৬ পূর্বাহ্ন