শ্রীবরদীতে অর্ধকোটি টাকা ব্যায়ে সরকারিভাবে বন্দোবস্ত নিয়েও প্রভাবশালীদের ভয়ে প্রকৃত মৎস্যজীবিরা
২০ আগস্ট, ২০১৯ ১০:৫০ অপরাহ্ন


  

   সর্বশেষ সংবাদঃ

  • উত্তরবঙ্গ/ অন্যান্য:

    শ্রীবরদীতে অর্ধকোটি টাকা ব্যায়ে সরকারিভাবে বন্দোবস্ত নিয়েও প্রভাবশালীদের ভয়ে প্রকৃত মৎস্যজীবিরা
    ২০ জুলাই, ২০১৯ ১২:২৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    মো. আব্দুল বাতেনঃ শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার ছোট বয়সা বিলটি প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যায়ে সরকারিভাবে বন্দোবস্ত নিয়েও প্রভাবশালীদের ভয়ে সেখানে যেতে পারছেন না প্রকৃত মৎস্যজীবিরা। ২য় দরপত্র দাখিলকারী শেখদী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির কতিপয় কুচক্রী সদস্য ও তাদের পেটোয়া বাহিনীদের ভয়ে বিলে যেতে পারছেন না প্রকৃত মৎস্যজীবিরা। বিলটি বন্দোবস্ত নেওয়ায় অনেক মৎস্যজীবি সর্বশান্ত হয়ে দিশাহারা হয়ে পরেছেন। এ অবস্থায় ছোট বয়সা বিলটি দখল বুঝিয়ে পেতে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এবং সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তারা।

    অভিযোগে জানা যায়, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ইং তারিখে শেরপুর জেলা কার্যালয় হইতে জলমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় ৩১ লাখ ৩৩ হাজার টাকায় ৩ বছরের জন্য ইজারা পায় শ্রীবরদী সততা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেড। ইজারা পাওয়ার পর নিয়ম মাফিক ১ম কিস্তি ১৫% ভ্যাট ও ৫% আয়কর সহ মোট ১৬ লক্ষ্য ৭০ হাজার ৯৩৪ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়ে চালানের কপি গ্রহন করে। পরে প্রথম দফায় দশ লক্ষ টাকার মাছ ছারে। ২য় দরপত্র দাখিলকারী শেখদী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির কতিপয় কুচক্রী সদস্য ও স্থানীয় প্রভাবশালী কিছু অসাধু ব্যক্তিগণ নিজে এবং তাদের সহযোগিতায় জলমহালটি দরপত্রের মাধ্যমে না পেয়ে প্রকৃত মৎস্যজীবিদের সাথে শত্রুতা বশত জলমহালের ভিতরে বাঁশের খুঁটি, বানা ও কারেন্ট জাল/বেড়াজালের মাধ্যমে বাঁধ দিয়ে বিলের এক চতুর্থাংশ ঘের দিয়ে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ বিঘিœত এবং মৎস্য চাষে বাঁধা সৃষ্টি করছে। তারা নিজেরা অবৈধ্যভাবে ইজারা নেওয়া জলমহালের ভেতরে প্রবেশ করে প্রতি রাতে ১০-১৫ জন মাছ শিকার করে। 


    উল্লেখ্য যে, সততা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি বিগত ৬ বৎসর যাবৎ সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী জলমহালটি সরকারীভাবে ইজারার নিয়ে প্রকৃত মৎস্যজীবিরা ভোগদখল করে আসছে। সততা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ আলী জানান, ছোট বয়সা বিলটি ইজারা পাওয়ার পর অতিকষ্টে টাকা ধার দেনা করে সরকারি কোষাগারে জমা করি। সরকারি বৈধ কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পরও ২য় দরপত্র দাখিলকারী শেখদী মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি সরকারীভাবে ইজারা না পাইয়া তাদের সদস্যরা প্রকৃত মৎস্যজীবিদের জলমহালে অবৈধ্যভাবে প্রবেশ করে বাঁশ, বেড়া ও কারেন্ট জাল দিয়ে ঘের দিয়ে মাছ শিকার করে।

     

    আমরা বাঁধা দিলে জীবননাশের হুমকি সহ নানা ভয়-ভীতি দেখায়। ছোট বয়সা বিল জলমহালে বহিরাগত লোকজন কর্তৃক অবৈধভাবে বাঁধ দিয়ে পানির স্বাভাবিক প্রবাহে বিঘœতা সৃষ্টি এবং ইজারাকৃত জলমহালে মৎস্য চাষ ও আহরনে বাঁধা সৃষ্টি কারিদের কতিপয় কুচক্রী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি অভিযোগ দিয়েছি। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২৯/৬/২০১৯ইং তারিখে বয়সা বিলে যান উপজেলা চেয়ারম্যান এডিএম শহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেঁজুতি ধর, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মঞ্জুর আহসান সেখানে বিবদমান দুপক্ষকেই ডেকে নিয়ে বাঁশের বাঁধ উঠিয়ে নেওয়ার জন্য দুই দিনের সময় দেয়। পরবর্তী সময়ের মধ্যে বাঁশের বাঁধ না উঠাইলে মোবাইল কোর্ট দিলে উপজেলা চেয়ারম্যান ওদের (বিবাদীদের) পক্ষ হয়ে নিজে পূনরায় দুই দিনের সময় নেয়। আজ প্রায় ১৫ দিন অতিবাহিত হয়েছে। তাতে কাজের কাজ কিছুই হয়নাই। কে শুনে কার কথা।

     

    বিবাদী পক্ষ আসান উল্লাহ বলেন বাঁশের খুঁটিদিয়ে বাঁধ দিয়েছি আমাদের জমিতেই, কারণ তাদের মাছ আমাদের জমিতে এসে ধান খেয়ে ফেলে, আইল-বাতর নষ্ট করে। এ বিষয়টি নিয়ে কোর্টে মামলা হয়েছে এবং মামলা বিচারাধীন আছে।সততা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সদস্য ইসমাইল হোসেন বলেন আমরা ইজারাকৃত বিলে সুষ্ঠুভাবে মাছ চাষ করতে না পারলে আমাদের সমিতির দরিদ্র্য অসহায় সদস্যগণের রুটিরুজি বন্ধসহ চরমভাবে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে। এই সমিতির ২০ জন সদস্যের সকলেরি মূল পেশা প্রাকৃতিক উৎস হতে মাছ শিকার ও জীবিকা নির্বাহ করা। 


    এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেঁজুতি ধর বলেন, জলমহালটি যারা বৈধভাবে ইজারা নিয়েছে প্রকৃত মৎস্যজীবিরা যেন ক্ষতিগ্রস্থ না হয় তাদের পক্ষেই প্রশাসন কাজ করবে। পরবর্তীতে আইন-শৃংখলার কোনো অবনতি না হয় সেটা আমি দেখব। 

    নিউজরুম ২০ জুলাই, ২০১৯ ১২:২৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 126 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    উত্তরবঙ্গ অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    বিশ্বকাপ ক্রিকেট

    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    11040885
    ২০ আগস্ট, ২০১৯ ১০:৫০ অপরাহ্ন