উল্লাপাড়ায় অর্থাভাবে ঢাবিতে ভর্তি হতে পারছে না কাঠশ্রমিক শুভ||চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ওয়েবসাইটে স্বাগতম | যোগাযোগ : ০১৭৭৯-১১৭৭৪৪
১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:৩২ অপরাহ্ন       রেজিষ্টার করুন | লগইন    

     সর্বশেষ সংবাদঃ

উল্লাপাড়া: শিক্ষা

উল্লাপাড়ায় অর্থাভাবে ঢাবিতে ভর্তি হতে পারছে না কাঠশ্রমিক শুভ
করেসপন্ডেন্ট, উল্লাপাড়া ০৭-১০-২০১৮ ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন প্রকাশিতঃ


ফাইল ছবি

 

উল্লাপাড়া প্রতিনিধিঃ প্রবল ইচ্ছাশক্তি থাকলে দারিদ্র্য যে মানুষকে কখনোই রুখতে পারে না- তার জ্বলন্ত উদাহরণ উল্লাপাড়ার শুভ কুমার। এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের 'খ' ইউনিটে সম্মান শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন অদম্য এই মেধাবী। পরীক্ষার ফলে তার মেধাক্রম ১২৬৬। এ ইউনিটে আসন সংখ্যা ২ হাজার ৩৭৮। এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় শুভ উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজের মানবিক বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ পেয়েছেন। এসএসসিতে জিপিএ ৫ রয়েছে তার। দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াই করে ভালো ফল করলেও অর্থাভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন থেমে যাচ্ছে শুভর।

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার শ্যামপুর গ্রামের দরিদ্র শ্যামল কুমার সরকারের ছেলে শুভ কুমার। ছোটবেলা থেকে স্থানীয় একটি কাঠের কারখানায় মিস্ত্রির সহযোগী হিসেবে কাজ করে নিজের লেখাপড়ার খরচ চালিয়েছেন শুভ। বাবাও কাঠের কারখানার শ্রমিক। তিন শতক ভিটের ওপর একটি ভাঙা টিনের ঘরে বাবা-মায়ের সঙ্গে বসবাস করেন শুভ। আর কোনো জমি-জিরেত তাদের নেই। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে শুভ বড়। ছোট ভাই সজীব স্থানীয় শ্যামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। ছোট বোন বৃষ্টি দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। বাবার সামান্য রোজগারে ভালোভাবে সংসার চলে না। তাই যষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় কাঠের কারখানায় কাজ শুরু করেন এই মেধাবী শিক্ষার্থী। নিজের লেখাপড়ার পাশাপাশি ছোট ভাইবোনদেরও পড়ালেখায় সহযোগিতা করে এসেছেন। শুভ'র মা পলি রানী জানান,  অনেক কষ্ট করে ছেলেটি এতদূর এসেছে। কোনোদিন ওকে ভালো খাবার দিতে পারিনি। পারিনি পছন্দমতো পোশাক দিতে। অনেক দিন না খেয়েই স্কুলে গেছে। পয়সার অভাবে কোনোদিন প্রাইভেটও পড়তে পারেনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার টাকাও ছিল না শুভর। গ্রামের কয়েকজন সহৃদয় মানুষ তাকে ঢাকা যাওয়ার টাকা সংগ্রহ করে দিয়েছিলেন। ঢাকায় পড়াশোনা করলে শুভ আর কাঠের কারখানায় কাজের সুযোগ পাবেন না। তাহলে উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন কীভাবে পূরণ হবে তার- এ চিন্তায় পরিবারের সবাই উদ্বিগ্ন।

উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শামীম হাসান জানান, শুভ অত্যন্ত মেধাবী, দায়িত্বশীল ও সৎ ছেলে। অভাব-অনটনের মধ্যেও লেখাপড়ার প্রতি রয়েছে তার গভীর আগ্রহ।

শুভ জানান, স্কুল-কলেজে পড়ার সময় শিক্ষকদের কাছ থেকে সপ্তাহে দু'দিন ছুটি নিয়ে কাজ করেছেন। তাকে সহযোগিতা করার জন্য কয়ড়া খাদিজা সাঈদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফজলুল করিম ও উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজের সহকারী অধ্যাপক শামীম হাসানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শুভ। তারা তাকে কারখানায় কাজ করতে ও পড়াশোনায় যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। শুভ বলেন, ছোটবেলা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করার স্বপ্ন হৃদয়ে লালন করে এসেছি। কিন্তু এখন সুযোগ পেয়েও আর্থিক সংকটের কারণে সেই স্বপ্ন পূরণ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।


০৭-১০-২০১৮ ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 547 বার দেখা হয়েছে।

পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ

চৌহালী নিউজঃ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

নির্বাচিত খবরসমুহ
উল্লাপাড়া : আরো খরবসমুহ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ প্রকাশিত
ফেসবুকে চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ফোকাস
বিজ্ঞাপন

স্পন্সরড অ্যাড

ভিজিটর সংখ্যা
100
১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:৩২ অপরাহ্ন