এ গ্রামে নেই মোবাইল ফোন, নেই গাড়ি||চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ওয়েবসাইটে স্বাগতম | যোগাযোগ : ০১৭৭৯-১১৭৭৪৪
১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১০:৫৫ অপরাহ্ন       রেজিষ্টার করুন | লগইন    

আন্তর্জাতিক: অন্যান্য

এ গ্রামে নেই মোবাইল ফোন, নেই গাড়ি
নিউজরুম ২৬-০৯-২০১৮ ০৫:১৫ অপরাহ্ন প্রকাশিতঃ


ফাইল ছবি

জার্মানির মধ্যে রয়েছেন, অথচ গাড়ি, মোবাইল ফোন নাগালের বাইরে৷ খাদ্য বলতে খেতের শাকসবজি, ফলমূল৷ মাছমাংস নেই৷ এমনই এক আদর্শ গ্রাম পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে টেকসই জীবনযাত্রা অনুসরণ করছে৷

বার্লিন থেকে প্রায় তিন ঘণ্টা দূরে ‘সিবেন লিন্ডেন` নামের একটি গ্রাম রয়েছে৷ ডয়চে ভেলের সাংবাদিক কিয়ো ড্যোরার সেই গ্রাম ঘুরে দেখেছেন৷ সেখানে মানুষ যতটা সম্ভব পরিবেশবান্ধব উপায়ে প্রকৃতির মধ্যে বাঁচার চেষ্টা করে৷ কিন্তু এমন আদর্শের নিশ্চয় একটা সীমা রয়েছে৷

সবার আগে নির্দিষ্ট জায়গায় গাড়ি রাখতে হবে, কারণ গোটা গ্রামে গাড়ির প্রবেশ নিষিদ্ধ৷ সেখানে যে আদৌ কিছু গাড়ি রয়েছে, সেটাই বিস্ময়ের কারণ৷ কিয়ো ড্যোরার নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, ‘‘মোবাইল ফোনের মাধ্যমে গ্রামের এক ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছি৷ কিন্তু তা সম্ভব নয়৷ তারা স্থায়ী ফোনই তোলেন না৷ বেশিরভাগ গ্রামবাসীর কাছে মোবাইল ফোন নেই৷ আমাকেও এটা বন্ধ করতে হবে৷``

এই ইকো-ভিলেজের জনসংখ্যা প্রায় ১৫০৷ ২০ বছর আগে গ্রামের পত্তন হয়েছিল৷ মিশায়েল ভ্যুর্ফেল প্রায় ১১ বছর আগে হানোফার শহর থেকে এখানে এসেছিলেন৷ তিনি বলেন, ‘‘শহরের পরিবহণ ব্যবস্থা আর বিজ্ঞাপন আমার সবচেয়ে বড় বিরক্তির কারণ ছিল৷ নিজেকে বড় অসহায় মনে হতো৷ জার্মানির মধ্যে থেকে, সব আইনকানুন মেনেও যে টেকসই পদ্ধতিতে বাঁচা যায় এবং জীবনটা উপভোগ করা যায়, সেটাই আমরা দেখানোর চেষ্টা করছি৷ অন্য জায়গার তুলনায় অনেক কম জ্বালানি ব্যবহার করেও আমরা ভালভাবে বেঁচে আছি৷``

বাড়ির দেওয়াল খড়ের গোলা দিয়ে ঢাকা, ফলে জ্বালানির সাশ্রয় হয়৷ বিদ্যুতের চাহিদার সিংহভাগ গ্রামেই উৎপাদন করা হয়৷ এমনকি সেই বিদ্যুৎ কাজে লাগিয়ে পানিও গরম করা হয়৷ এই ইকো-ভিলেজ শুধু বিদ্যুৎ সাশ্রয় করে না, গ্রামবাসীরা প্রয়োজনীয় খাদ্যও নিজেরা উৎপাদন করার চেষ্টা করেন৷ অরগ্যানিক বীজ নিয়ে, কীটনাশক ছাড়াই চাষবাস করা হয়৷ খেত ও বাগানের কাজও মূলত হাত চালিয়ে করা হয়৷

নাডিন ফিশার এখানে মালির কাজ করেন৷ আগে তিনি বার্লিনে থাকতেন৷ নাডিন বলেন, ‘‘যন্ত্র ছাড়াই কাজ করা পরিবেশবান্ধব ও যুক্তিপূর্ণ৷ মাটি ও পরিবেশের জন্য তা অনেক ভালো৷ জমিতে পেট্রোল ও দুর্গন্ধ থাকে না৷ বসন্ত ও গ্রীষ্মে ফসল ফলে৷ মানুষ মাটির আরও কাছাকাছি থাকে৷``

কিয়ো ড্যোরার এ প্রসঙ্গে মনে করিয়ে দেন, যে প্রায় ৩৫ ডিগ্রি তাপমাত্রায় এমন কাজ করা বেশ কঠিন৷ এর জন্য শক্তি চাই৷ তবে দক্ষতার ছাপ চোখে পড়ে না৷ গ্রামবাসীরা প্রায়ই প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কাজ করেন বলে মনে হতে পারে৷

পশুপালনের কোনো চিহ্ন চোখে পড়ছে না৷ কিছু গৃহপালিত আলপাকা দেখা যাচ্ছে৷ দৈনিক খাদ্যতালিকায় মাংস থাকে না৷ কারণ তা পরিবেশের জন্য বড্ড ক্ষতিকর৷ তাছাড়া গ্রামে ভিজান বা খাঁটি নিরামিষাশীদেরই আধিপত্য রয়েছে৷ প্রায় ৭০ শতাংশ শাকসবজি বাগানেই চাষ করা হয়৷ সেই অনুপাত বাড়ানোর উদ্যোগ চলছে৷ কিয়ো ড্যোরার মনে করেন, তিনি সত্যি, বহুকাল এমন স্বাস্থ্যকর খাবার খাননি৷

অবশিষ্ট খাবার কমপোস্ট করে সার হিসেবে ব্যবহার করা হয়৷ সে সবও সম্পদ বটে৷ গ্রামবাসীরা মাত্রাতিরিক্ত ভোগের প্রবণতা ভালো চোখে দেখেন না৷ কিছু খাদ্যকে মৌলিক চাহিদা হিসেবে গণ্য করা হয়৷ বাকি সব ছোটখাটো জিনিসপত্র বিলাসের উপকরণ৷ গ্রামের একটি মাত্র দোকানেই সবকিছু কিনতে যায়৷

শহরের সুপারমার্কেট সম্পর্কে আন্দ্রেয়াস শুবার্ট কোনো বিরূপ মন্তব্য করেন না৷ তিনি বলেন, ‘‘এত রকম পণ্য রাখার মানে হয় না৷ আমি যখন বাইরে কেনাকাটা করতে যাই, তখন বিশাল বৈচিত্র্য ও বিপুল পরিমাণ পণ্য চোখে পড়ে৷ সামনে দাঁড়ালে বুঝতে পারি না, কোনটা কেনা উচিত বা সেই পণ্য আসলে কীরকম৷``

সূত্র: ডয়েচে ভেলে


২৬-০৯-২০১৮ ০৫:১৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 180 বার দেখা হয়েছে।

পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ

চৌহালী নিউজঃ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

নির্বাচিত খবরসমুহ
আন্তর্জাতিক : আরো খরবসমুহ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ প্রকাশিত
ফেসবুকে চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ফোকাস
বিজ্ঞাপন

স্পন্সরড অ্যাড

ভিজিটর সংখ্যা
100
১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১০:৫৫ অপরাহ্ন