কামারখন্দে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আটক চার||চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ওয়েবসাইটে স্বাগতম | যোগাযোগ : ০১৭৭৯-১১৭৭৪৪
১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ০৮:২৯ অপরাহ্ন       রেজিষ্টার করুন | লগইন    

কামারখন্দ: অপরাধ

কামারখন্দে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আটক চার
অনলাইন নিউজ এডিটর ২৮-০৮-২০১৮ ১১:০০ পূর্বাহ্ন প্রকাশিতঃ


ফাইল ছবি

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার সন্ধায় ধলেশ্বর গ্রামের সারোয়ার হোসেন, আবু মুছা ও কামারখন্দ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আশফাকুর রহমান বাদী হয়ে ৩৪ জনের নামে ও প্রায় ২শ ৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেন।
 

তিনটি মামলার মধ্যে পুলিশের সরকারি কাজে বাধাদান ও পুলিশকে মারপিট করার মামলায় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। রবিবার দিনগত রাতে তাদের আটক করা হয়। 
 

আটককৃতরা হলো, উপজেলা বাড়াকান্দি গ্রামের মৃত জামাল উদ্দীনের ছেলে হোসাইন (৩২), মানিক (২৫), কামাল আকন্দের ছেলে নুরুল আমিন (২৮), আবু সাইদের ছেলে আলম মোল্লা (৩০)। সোমবার দুপুরে আটককৃতদের সিরাজগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়।
 

উল্লেখ্য, গত রবিবার দুপুরের দিকে উপজেলার বাড়াকান্দি ও ধলেশ্বর গ্রামের মধ্যে এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। জানা যায়, ধলেশ্বর গ্রামের পত্রিকা এজেন্ট সারোয়ার হোসেনের ছেলে হাফিজুর রহমান তার এক আত্মীয়কে মোবাইলে কল করতে যায়। এ সময় একটি সংখ্যা ভুল ডায়াল করলে বাড়াকান্দি গ্রামের মৃত কোবাদের মেয়ে মারুফার মুঠোফোনে ফোন চলে যায়।দুজনে কথা বলার এক পর্যায়ে মারুফার কাকা মারুফার হাত থেকে ফোন কেড়ে নিয়ে হাফিজুরকে খারাপ ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে।
 

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে কয়েকদিন পর রায়দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদে মারুফার কাকা এলে তার সঙ্গে হাফিজুরের কথা কাটাকাটি হয়। কথা বলার এক পর্যায়ে হাতাহাতিও হয়। 
 

গত শনিবার বিকেলে বাড়াকান্দি গ্রামে স্থানীয় মাতুব্বরদের উপস্থিতিতে এক শালিশি বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সেই শালিশি বৈঠকে বাড়াকান্দি গ্রামের লোকজন ধলেশ্বর গ্রামের লোকজনদের বেধম মারপিট শুরু করে। এতে ওই দিন হাফিজুরসহ ধলেশ্বর গ্রামের তিনজন গুরুতর আহত হন। আহতরা বর্তমানে সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালসহ রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে।
 

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে রবিবার দুপুরের দিকে বাড়াকান্দি গ্রামের দিকে ধলেশ্বর গ্রামের লোকজন লাটিসোটা নিয়ে এগিয়ে এলে বাড়াকান্দি গ্রামেরও লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে এগিয়ে আসে। এ সময় এক সংঘর্ষ বাধে। সেই সংঘর্ষে থানার সেকেন্ড অফিসার আশফাকুর রহমানসহ উভয় পক্ষের ১৫/১৭ জন আহত হন। পরে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে।
 

কামারখন্দ সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার আতোয়ার রহমান জানান, ধলেশ্বর ও বাড়াকান্দি দুই গ্রামের সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক তিনটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ সব মামলায় চার জনকে আটক করা হয়েছে। বাকি আসামিদের আটকের চেষ্টা চলছে।


২৮-০৮-২০১৮ ১১:০০ পূর্বাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 313 বার দেখা হয়েছে।

পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ

চৌহালী নিউজঃ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

নির্বাচিত খবরসমুহ
কামারখন্দ : আরো খরবসমুহ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ প্রকাশিত
ফেসবুকে চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ফোকাস
বিজ্ঞাপন

স্পন্সরড অ্যাড

ভিজিটর সংখ্যা
100
১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ০৮:২৯ অপরাহ্ন