‘তথ্য প্রযুক্তি খাতে ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে’||চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ওয়েবসাইটে স্বাগতম | যোগাযোগ : ০১৭৭৯-১১৭৭৪৪
১৭ আগস্ট, ২০১৮ ১১:১৫ পূর্বাহ্ন       রেজিষ্টার করুন | লগইন    

উত্তরবঙ্গ: টেক নিউজ

‘তথ্য প্রযুক্তি খাতে ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে’
অনলাইন নিউজ এডিটর ১১-০৮-২০১৮ ০২:৩২ অপরাহ্ন প্রকাশিতঃ


ফাইল ছবি

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এম.পি বলেন, বাংলাদেশ দ্রুত উন্নত দেশের কাতারে অগ্রসরমান। এদেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৭০ ভাগ অর্থাৎ ১১ কোটি তরুণ-তরুণী উন্নত বাংলাদেশ তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। প্রযুক্তি খাতে তাদেরকে সম্পৃক্তকরার উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রনয়ন করা হয়েছে।


 
শুক্রবার বিকেলে নাটোরের শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারে ফ্রিল্যান্সারদের সাথে মতবিনিময় কালে তিনি এসব কথা বলেন।


পলক বলেন, আগামী ৫ বছরে তথ্য প্রযুক্তি খাতে ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে। তারা ডিজিটাল সৈনিক হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের সহযোদ্ধা হিসেবে কাজ করবেন। দেশের তরুণ প্রজন্ম ২০২১ সাল নাগাদ তথ্য প্রযুক্তি খাতে ৫ বিলিয়ন বৈদেশিক মুদ্রা আয় করবে।


অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রত্যেক ফ্রিল্যান্সাররাই এক একজন মেন্টর। তাদের হাতেই এদেশ একদিন সোনার বাংলা হবে এবং সেদিন সমাগত প্রায়।


অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাটোর সদর-নলডাঙ্গা আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন, নাটোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সাজেদুর রহমান খান, পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার, নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, জেলা ফ্রিল্যান্সার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি গোলাম মওলা   শাহীন, ফ্রিল্যান্সার সোহাগ হোসেন ও সুরভী রহমান।


অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ ফ্রিল্যান্সারদের কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন। তাদের পেশাগত সমস্যা ও উত্তরণের উপায় সম্পর্কে ধারণা   গ্রহন করেন এবং প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।


নাটোরের পুরনো জেলখানা ভবন এলাকায় ২.৫ একর জমির উপরে  ছয় কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার নির্মাণ কাজ সম্প্রতি শেষ হয়।


এরমধ্যে রয়েছে পুরনো জেলখানা ভবন সংস্কার করে প্রশিক্ষণ সেন্টার তৈরী ও ছয়তলা ফাউন্ডেশনের উপর নতুন দ্বিতল ভবনে ইনকিউবেশন সেন্টার নির্মাণ। সেন্টারটিতে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন,   কম্পিউটার হার্ডওয়্যার অ্যান্ড নেটওয়ার্কিং ট্রাবলশ্যুট এবং কন্ডাক্টিং ই-কমার্স ওয়েব সাইট ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে শিক্ষিত তরুণ-তরুণীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের কার্যক্রম চালু করা হয়। এ পর্যন্ত ২১ টি ব্যাচে মোট ৪৮০ প্রশিক্ষণার্থী তাদের প্রশিক্ষণ ইতোমধ্যে শেষ করেছেন। প্রতিষ্ঠানটিতে এখন ইনকিউবেশনের কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে।


১১-০৮-২০১৮ ০২:৩২ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 34 বার দেখা হয়েছে।

পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ

চৌহালী নিউজঃ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

নির্বাচিত খবরসমুহ
উত্তরবঙ্গ : আরো খরবসমুহ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ প্রকাশিত
ফেসবুকে চৌহালী নিউজঃ
চৌহালী নিউজঃ ফোকাস
বিজ্ঞাপন

স্পন্সরড অ্যাড

ভিজিটর সংখ্যা
100
১৭ আগস্ট, ২০১৮ ১১:১৫ পূর্বাহ্ন